সোমবার, ২৯ নভেম্বর ২০২১, ১২:০১ পূর্বাহ্ন
শিরোনাম :
কুমিল্লা সিটি করপোরেশনের কাউন্সিলর সোহেলের মৃত্যু নিশ্চিত করতে কাঁপলে গুলি করে খুনি শাহ আলম;মাথায় গুলি করে খুনি জেল সোহেল দেবিদ্বার থানার পুলিশের অভিযানে এক মাদক ব্যাবসায়ী গ্রেপ্তার কুমিল্লায় জোড়া খুনের রহস্য উন্মোচন করা জন্য আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর একাধিক টিম তদন্ত করে আসামিদের গ্রেফতার করার কাজ চালিয়ে যাচ্ছে কুমিল্লা সিটি করপোরেশনের ১৭নং ওয়ার্ড কাউন্সিলার সৈয়দ মোহাম্মদ সোহেল এর জানাজা নামাজ আজ বাদ যোহর নামাজের পর নগরীর পাথুরিয়া পাড়া জামে মজিদ প্রাঙ্গণে অনুষ্ঠিত হচ্ছে কুমিল্লা সিটি কর্পোরেশনের ১৭নং ওর্য়াড কাউন্সিলার সৈদয় মোহাম্মদ সোহেলসহ আ’লীগের নেতা বাবু হরিপদ এর উপর সন্ত্রাসীদের গুলিতে দু’জনের মৃত্যু; নগর আ’লীগের সভাপতি ও কুমিল্লা -৬ সংসদীয় আসনের এমপি আ ক ম বাহারউদ্দিন বাহার নিহত দু’পরিবারের সমবেদনা জ্ঞাপন ও শোক প্রকাশ কুমিল্লায় ব্যবসায়ীকে অপহরণের পর মুক্তিপর চাওয়া তিনজন অপরাধীকে গ্রেফতার; ব্যবসায়ীকে উদ্ধার কুমিল্লায় বেশিরভাগ মুদি দোকানে মিলছে জীবনরক্ষাকারী ঔষুধের অতিরিক্ত দাম রাখার অভিযোগ জাগ্রত মানবিকতার আয়োজনে রক্তের গ্রুপ নির্নয় ও রক্তদাতা সংগ্রহনে আলোচনা সভা কুমিল্লা নগরের ৩ ওয়ার্ডের সড়কের নামের ফলক উন্মোচন -এমপি বাহার কক্সবাজারে ইকবালকে গ্রেপ্তার; আজ ১২টায় কুমিল্লা পুলিশ কার্যালয়ে পৌঁছায়
নোটিশ :

কুমিল্লায় বিয়ে বাড়িতে ছবি তোলায় কেন্দ্র করে গোলাগুলি দু’পক্ষের আহত- ২০

আরমান হোসেনঃ
কুমিল্লার হোমনায় বিয়ে বাড়িতে ছবি তোলাকে কেন্দ্র করে সংঘর্ষের ঘটনায় গুলিবিদ্ধসহ ২০ জন আহত হয়েছেন। রোববার দুপুরে উপজেলার ঘারমোরা বাজারে এ সংঘর্ষের ঘটনা ঘটে। এদিকে, সংঘর্ষের খবর পেয়ে পুলিশ গিয়ে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনে।
উভয়পক্ষের আহতরা হলেন- রাজিব মিয়া, শাহ আলম, জিলানী, অজিত, শাহ আলম, নজরুল মিয়া, কবির হোসেন, ইকবাল মিয়া, আশাবুদ্দিন, ইকবাল হোসেন, কেটা মায়া, আজগর আলী, সানাউল্লাহ, আরিফ, শুভ, জিলানি, জুয়েল, তানভীর, সাইদুল, মোমেন, বাদশা মিয়া, হৃদয়।এদের মধ্যে রাজিব মিয়া ও শাহ আলম, আলী আকবর, সাব মিয়া শুভ ও মোমেন মারাত্মক আহত হয়েছেন। এদের কুমিল্লা মেডিকেল হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। এলাকাবাসী সূত্রে জানা গেছে, উপজেলার বড় ঘারমোরা গ্রামের গিয়াস উদ্দিনের বাক প্রতিবন্ধী মেয়ের সঙ্গে উপজেলার বাগমারা গ্রামে এক ছেলের বিয়ে ঠিক হয়। গত শুক্রবারে বিয়ের দিন নির্ধারিত হয়, তার আগের দিন বৃহস্পতিবার গায়ে হলুদ অনুষ্ঠানে ডিজে মিউজিক চলার সময় রাতে পাশের ফজুর কান্দি গ্রামের রাসেল ইমরান, অন্তর সহ ৮/৯ জন ছেলে গিয়ে মেয়েদের ছবি উঠাতে থাকে। এসময় বড়ঘারমোরা গ্রামের কয়েকজন ছেলে এসব ছবি ডিলিট করতে বলে। এ নিয়ে এদের মধ্যে কথা কাটাকাটি ও হাতাহাতির ঘটনা ঘটে। এর জের ধরে শনিবার সকালে বড় ঘারমোরা গ্রামের মো. সাব মিয়া বাজারে এলে তার দুধ মাথায় ঢেলে দিয়ে অপমান করে এবং তাকে মারধর করে হুজুর কান্দি গ্রামের কয়েকজন ছেলে। এই ঘটনায় সাব মিয়ার ভাই জাহাঙ্গীর আলম বাদী হয়ে হুজুর কান্দি গ্রামের ১৫ জনকে আসামি করে থানায় একটি মামলা করেন। পুলিশ হুজুর কান্দি গ্রামের বকুল নামের একজনকে গ্রেপ্তার করে। এই নিয়ে দুই গ্রামের লোকজনের মধ্যে উত্তেজনা বিরাজ করছিল‌। রোববার সকাল ৮টার দিকে দুই গ্রামের লোকজন ঘাড়মোরা বাজারে সংঘর্ষে জড়িয়ে পড়ে। এসময় ২০ থেকে ২৪ জন আহত হয়। এদের মধ্যে ১২ জনকে হাসপাতালে ভর্তি এবং বাকিদের প্রাথমিক চিকিৎসা দেওয়া হয়েছে।বড় ঘারমোরা গ্রামের আউয়াল মিয়া জানান, বৃহস্পতিবার হুজুর কান্দি গ্রামের কয়েকজন বখাটে ছেলে আমাদের বাড়িতে এসে মেয়েদের ছবি উঠায়। এসকল ছবি ডিলিট করা নিয়ে কথা কাটাকাটি হয়। শনিবার বাজারে গেলে হুজুর কান্দি গ্রামের লোকজন মো. সাব মিয়া নামের একজন মুরুব্বীকে মারধর করে। এ ঘটনায় থানায় একটি মামলা হয়েছে। রোববার সকালে হুজুর কান্দি গ্রামের লোকজন ইয়ারগানসহ দেশীয় অস্ত্র নিয়ে আমাদের গ্রামের লোকজন উপর হামলা করে। তাদের গুলিতে দুইজনসহ ১৫ জন আহত হয়েছে।এদিকে হুজুর কান্দি গ্রামের গোলাম মোস্তফা জানান, ছেলেদের মধ্যে যে সমস্যা হয়েছে আমরা সেটা মিটমাট করার জন্য চেষ্টা করছিলাম। এই সময় বড় ঘারমোরা গ্রামের লোকজন আমাদের গ্রামের লোকজন ওপর অতর্কিত হামলা চালায়। এতে ১০/১২ জন আহত হয়েছে। কোন গোলাগুলির ঘটনা ঘটেনি। এদের ইটের আঘাতে আমাদের লোকজন আহত হয়েছে।
ঘারমোরা ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান মো. শাহজাহান মোল্লা জানান, বৃহস্পতিবার বিয়ে বাড়িতে ছবি তোলাকে কেন্দ্র করে ছেলেদের মধ্যে হাতাহাতির ঘটনা ঘটে। পরবর্তীতে গত শনিবার একজনকে মারার ঘটনায় থানায় মামলা হলে একজন গ্রেপ্তার হয়। আজকে বিষয়টি মিটমাট করার জন্য বসার কথা ছিল। কিন্তু এর মধ্যেই ফজুরকান্দি ও বড় ঘারমোরা গ্রামবাসী সংঘর্ষে জড়িয়ে পড়ে। আমাদের নিয়ন্ত্রণের বাইরে চলে যাওয়ায় থানায় খবর দিলে পুলিশ এসে নিয়ন্ত্রণ করে।
এ বিষয়ে হোমনা থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) মো. আবুল কায়েস আকন্দ জানান, বড় ঘাড়মোরায় একটি বিয়ে বাড়িতে ফজুর কান্দি গ্রামের কয়েকজন ছেলে ছবি তুললে ওই গ্রামের লোকজন বাধা দেয়। এ ঘটনার জের ধরে হাতাহাতির ঘটনা ঘটে। পরবর্তীতে গত শনিবার একজনকে মারধর করে হুজুর কান্দি গ্রামের লোকজন এ ঘটনায় থানায় একটি মামলা হয়েছে এবং একজনকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে। এই ঘটনার জের ধরে আজ সকালে আবারও দুই পক্ষের মধ্যে সংঘর্ষের ঘটনা ঘটে। পরিবেশ নিয়ন্ত্রণে রয়েছে বলেও জানান তিনি।

সংবাদটি শেয়ার করুন:
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  



ফেসবুকে আমরা